1. kmohiuddin456@gmail.com : admin :
  2. dailybanglarrobi@gmail.com : Arif Mahamud : Arif Mahamud
  3. jahedulhaque24@gmail.com : Jahidul Hoque Masud : Jahidul Hoque Masud
বৃহস্পতিবার, ০৩ ডিসেম্বর ২০২০, ০১:৫৭ অপরাহ্ন
নোটিশ :
সংবাদকর্মী নিয়োগ চলছে, যোগাযোগ : ০১৭০৮ ৫১৫৫৩৫, প্রচারেই প্রসার # সকল প্রকার বিজ্ঞাপনের জন্য যোগাযোগ করুন - ০১৭১২ ৬১৮৭০০

কৃষকের অনীহা সরকারি গুদামে ধান-চাল দিতে

রিপোর্টার :
  • হালনাগাদ : শুক্রবার, ১০ জুলাই, ২০২০
  • ৫৯ Time View

নিজস্ব প্রতিবেদক:

কৃষক থেকে সরকারিভাবে বোরো ধান-চাল কেনা গত ২৬ এপ্রিল থেকে শুরু হয়েছে। কিন্তু নির্বাচিত কৃষকরা ধান-চাল বিক্রি করতে গুদামে না আসায় বোরো ধান-চাল কেনার ক্ষেত্রে গতি নেই। সরকারি সংগ্রহের টার্গেট পূরণে অনিশ্চয়তা দেখা দিয়েছে।

এদিকে, নির্দিষ্ট সময়ের মধ্যে ধান-চাল সংগ্রহ করতে দুই পরিকল্পনা নিয়ে এগুচ্ছে সরকার। পরিস্থিতি সামাল দিতে এ সংক্রান্ত নীতিমালা সংশোধনও করা হয়েছে।

সূত্র জানায়, বোরো মৌসুমে ধান উৎপাদন হয়েছে ২ কোটি ৪ লাখ ৩৬ হাজার মেট্রিক টন। এর মধ্যে সরকার ধান-চাল মিলে এবার সাড়ে ১৯ লাখ মেট্রিক টন খাদ্যশস্য সংগ্রহ করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে। কিন্তু দুই মাসের বেশি সময় অতিক্রম হলেও বোরো ধান কেনার ক্ষেত্রে গতি বাড়েনি।

২৬ এপ্রিল থেকে ২৮ জুন পর্যন্ত মাত্র ৬০ হাজার মেট্রিক টন ধান কেনা হয়েছে। সিদ্ধ চাল ১ লাখ ৬০ হাজার মেট্রিক টন ও আতপ চাল ৩৫ হাজার মেট্রিক টন কেনা হয়। ২৬ এপ্রিল থেকে ৫ জুলাই পর্যন্ত সোয়া ১ লাখ মেট্রিক টন ধান কেনা হয়েছে। (দুই মাসে কেনা হয়েছিল ৬০ হাজার মেট্রিক টন। গত এক সপ্তাহে কেনা ৬৫ হাজার মেট্রিক টন), সিদ্ধ চাল ২ লাখ মেট্রিক টন ও আতপ চাল ৮০ হাজার মেট্রিক টন কেনা হয়েছে। ত এক সপ্তাহে কেনার গতি কিছুটা বেড়েছে। বোরো চাল সংগ্রহ কার্যক্রম আগামী ৩১ অগাস্ট শেষ হবে। ধান-চাল কেনার পরিস্থিতি দেখে প্রয়োজনে আগামী ১৬ আগস্ট আমদানির কার্যক্রম শুরু হবে।

খাদ্য মন্ত্রণালয়ের একজন কর্মকর্তা বলেন, করোনার ভয়ে ও স্থানীয় বাজারে ধানের দাম বেশি পাওয়ায় জেলা-উপজেলার কৃষকরা সরকারি গুদামে আসছেন না। গত সপ্তাহে মন্ত্রণালয় থেকে নতুন নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে। নির্দেশনার পর সরকারি টার্গেট পূরণে তালিকার বাইরে থাকা ফড়িয়া, স্থানীয় মিল মালিকসহ অন্য কৃষকের কাছ থেকে ধান-চাল কেনা হচ্ছে। লক্ষ্যমাত্রা আগামী ১৪ আগস্টের মধ্যে দিনে পূরণ হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে।

কুড়িগ্রামের উলিপুর উপজেলার কৃষক রহিম মিয়া বলেন, আমি সরকারি গুদামে ২৬ টাকা কেজিতে ধান বিক্রি করেছি। ঝামেলা নেই, এলাকার অনেকেই সরকারি গুদামে ধান-চাল বিক্রি করছে।

কুড়িগ্রাম জেলা খাদ্য নিয়ন্ত্রক মো. মিজানুর রহমান বলেন, ১ জুলাই থেকে ধান-চাল বেশি সংগ্রহ হয়েছে। জেলায় ২০ হাজার ৭৫০ মেট্রিক টন বোরো ধান সংগ্রহের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হলেও ৩ জুলাই পর্যন্ত ২৩১০ মেট্রিক টন ধান সংগ্রহ হয়েছে। আশা করি নির্দিষ্ট সময়ের মধ্যে লক্ষ্যমাত্রা পূরণ হবে।

খাদ‌্যমন্ত্রী সাধন চন্দ্র মজুমদার বলেন, সরকার ধান কেনার কারণে কৃষক ন্যায্যমূল্য পাচ্ছে। বোরো ধান সংগ্রহের গতি বাড়াতে কর্মকর্তাদের নতুন নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে। আশা করি, নির্দিষ্টি সময়ে ধান-চাল কেনার লক্ষ্যমাত্রা পূরণ হবে। কোনও কারণে নির্দিষ্ট সময়ে চাহিদা পূরণ না হয় তাহলে আমদানিতে যাবে সরকার।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

এই শাখায় অন্যান্য খবর
%d bloggers like this: