1. kmohiuddin456@gmail.com : admin :
  2. dailybanglarrobi@gmail.com : Arif Mahamud : Arif Mahamud
বৃহস্পতিবার, ২২ অক্টোবর ২০২০, ০৪:০১ অপরাহ্ন
নোটিশ :
সংবাদকর্মী নিয়োগ চলছে, যোগাযোগ : ০১৭০৮ ৫১৫৫৩৫, প্রচারেই প্রসার # সকল প্রকার বিজ্ঞাপনের জন্য যোগাযোগ করুন - ০১৭১২ ৬১৮৭০০

জ্বালানি খাতে যুক্তরাষ্ট্রের বিনিয়োগ চায় বাংলাদেশ

রিপোর্টার :
  • হালনাগাদ : বৃহস্পতিবার, ১৫ অক্টোবর, ২০২০
  • ৬৮ Time View

নিজস্ব প্রতিবেদক:

জ্বালানি খাতে যুক্তরাষ্ট্রের বড় বিনিয়োগ চেয়েছে বাংলাদেশ। বিশেষত বঙ্গোপসাগরের গ্যাস অনুসন্ধানে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র বাংলাদেশের প্রস্তাবকে স্বাগত জানিয়ে ওই খাতে বড় বিনিয়োগের আগ্রহ দেখিয়েছে।
বুধবার রাতে রাজধানীর একটি অভিজাত হোটেলে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের উপ-পররাষ্ট্রমন্ত্রী স্টিফেন ই বিগানের সঙ্গে বৈঠক শেষে বাংলাদেশ প্রতিনিধি দলের প্রধান পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী শাহরিয়ার আলম এমপি এ তথ্য জানান।

প্রতিমন্ত্রী বলেন, এনার্জি, বিশেষ করে গ্যাস ক্ষেত্র- অনসোর এবং অপসোরে অনুসন্ধানে আমরা যুক্তরাষ্ট্রের সম্পৃক্ততা নিয়ে কথা বলেছি। সমুদ্র সীমা নির্ধারণের পর আমরা ২০টির অধিক ব্লকে বিভক্ত করেছি। যেখানে দু’একটি কোম্পানীকে এনগেজ করেছি।

তবে অতীতেও সরকারি ক্ষেত্রে ডিরেক্ট নেগোসিয়েশন হয়েছে। মার্কিন কোনো ভাল কোম্পানী পাওয়া গেলে নিশ্চিয়ই সরকার ডিরেক্ট নেগোসিয়েশনের বিষয়টি বিবেচনা করবে। প্রতিমন্ত্রী যুক্তরাষ্ট্রের এলএনজি সাপ্লাই শুরুর বিষয়টি স্মরণ করে সামনের দিনে এটি অব্যাহত থাকবে বলে আশা করেন।

বৈঠক পরবর্তী ব্রিফিংয়ে পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী জানান, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র বাংলাদেশের সঙ্গে ফ্রি ট্রেড এগ্রিমেন্টে আগ্রহ দেখিয়েছে। দ্বিপক্ষীয় বাণিজ্য এবং কোভিড-পরবর্তী অর্থনৈতিক পুনরুদ্ধার প্রশ্নে তারা ‘বেল্ট অ্যাক্ট’ এর আওতায় কিছু দেশটি প্রিফারেনশিয়াল সুবিধা দিচ্ছে। বাংলাদেশও ওই বাণিজ্য সুবিধা চায়, যার আওতায় শুল্কমুক্তি হতে পারে।

ঢাকা বলেছে, যুক্তরাষ্ট্রের বাজারে শুল্কমুক্তির ওই সুবিধা পেলে বাংলাদেশের কোভিড পরবর্তী অর্থনৈতিক পুনরুদ্ধার কার্যক্রম আরো গতিশীল হবে। জবাবে যুক্তরাষ্ট্র বলেছে, যাদেরকে তারা ওই বিশেষ সুবিধা দিয়েছে বা দিচ্ছে তাদের সঙ্গে ওয়াশিংটনের বাণিজ্যর আকার অনেক বড়। বাংলাদেশের সঙ্গে বাণিজ্যের আকার বাড়লে তারা এটি বিবেচনা করতে পারে।

অপর এক প্রশ্নের জবাবে প্রতিমন্ত্রী বলেন, ৩০ শে ডিসেম্বরের পর যুক্তরাষ্ট্রের বিশেষ বাণিজ্য সুবিধা জিএসপি থাকছে না। হয়তো নতুন কোনো ম্যাকানিজম আসবে। আমরা আশা করি সেই বাণিজ্য সুবিধা পাবো। বাংলাদেশের তৈরি পোশাক ছাড়াও যুক্তরাষ্ট্রের বাজারে পাট, জাহাজ, আইসিটি, লেদার এবং আইটি রিলেটেড প্রোডাক্ট রফতানির সুযোগ রয়েছে।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই শাখায় অন্যান্য খবর