1. admin@banglarrobi.com : admin :
  2. jahedulhaque24@gmail.com : Masud Rahman : Masud Rahman
শুক্রবার, ০৭ মে ২০২১, ০১:৫৩ অপরাহ্ন
নোটিশ:
সংবাদাতা নিয়োগ চলছে... যোগাযোগ : 01708515535

কলাপাড়া স্ত্রীর দাবিতে প্রেমিকের বাড়িতে অবস্থান

Reporter Name
  • Update Time : রবিবার, ৫ জুলাই, ২০২০
  • ৮০ Time View

পটুয়াখালীপ্রতিনিধি:
পটুয়াখালীর কলাপাড়ায় স্ত্রীর দাবিতে প্রেমিকের বাড়িতে অবস্থান নিয়েছে প্রেমিকা। এ খবর পেয়ে প্রেমিক মিঠুন সিমলাই আত্মগোপন করেছে। ঘটনাটি উপজেলার চম্পাপুর ইউনিয়নের মাছুয়াখালী গ্রামে। গত মঙ্গলবার থেকে প্রেমিকা ঈশানী হাওলাদার তার প্রেমিকের চাচার বাড়িতে অবস্থান করছে।

প্রেমিকা ঈশানীর ভাষ্য, সপ্তম শ্রেণিতে পড়াশোনা করা অবস্থায় চম্পাপুর ইউনিয়নের মাছুয়াখালী গ্রামের নির্মল সিমলাই’র ছেলে মিঠুন সিমলাই’র প্রেমের সর্ম্পক গড়ে ওঠে। দীর্ঘ সাত বছর ধরে সম্পর্ক চলাকালীন বিভিন্ন প্রলোভন দেখিয়ে কপালে সিঁদুর পড়িয়ে দেয়। এতে ঈশানী মনেপ্রানে মিঠুনকে স্বামী হিসেবে গ্রহন করে বিভিন্ন সময় রাত্রি যাপন করে। এক পর্যায় সে অন্তঃসত্বাও হয়ে পড়ে। পরবর্তীতে মিঠুন ইশানীর সাথে যোগাযোগ বন্ধ করে দেয়। বাধ্য হয়ে ঈশানীর বাবা মির্জাগঞ্জ উপজেলার বাসন্ডা গ্রামের অধিবাসী সমির রঞ্জন হাওলাদার তার মেয়েকে অন্যত্র বিয়ে দেয়ার জন্য ঠিক করেন। এ খবর পেয়ে প্রেমিক মিঠুন ঈশানীকে স্ত্রী হিসেবে নিবে বলে আশ্বাস দিয়ে বিয়েটি ভেঙ্গে দেয়। সে আশায় পুনরায় বুক বাঁধে প্রেমিকা ঈশানী। নিয়মিত যোগাযোগ রক্ষা করে চলেছে। ইতিমধ্যে মিঠুন অন্যত্র বিয়ে করার প্রস্তুতি নিলে বিষয়টি ঈশানী জেনে স্ত্রীর দাবিতে গত মঙ্গলবার দুপুরে প্রেমিক মিঠুনের বাড়িতে আশ্রয় নিতে গেলে তাকে অকথ্য ভাষায় গালাগাল দেয়। পরে ঈশানী একই বাড়ির ওপরে মিঠুনের চাচা জয়দেব সিমলাই’র বাড়িতে স্ত্রীর দাবিতে অবস্থান নিয়েছে।

উল্লেখ্য, গত চৈত্র মাসেও ঈশানী স্ত্রীর দাবিতে মির্জগঞ্জের বাসন্ডা থেকে প্রেমিক মিঠুন সিমলাই’র বাড়িতে এসেছিল। সে সময় মিঠুনের পরিবার তাকে বিয়ের আশ্বাস দিয়ে পাঠিয়ে দিয়েছিল বলে ঈশানী জানিয়েছেন।
এ ব্যাপারে অভিযুক্ত মিঠুন সিমলাই’র সাথে তার মুঠোফোনে একাধিকবার যোগাযোগ করার চেষ্টা করা হলে তিনি ফোন রিসিভ করেননি।
তবে মিঠুন সিমলাই’র বড় ভাই জয়ন্ত সিমলাই স্বাত্যতা স্বীকার করে বলেন, তার ভাই মিঠুনের সাথে মেয়েটির সম্পর্ক আছে। এর আগেও একবার সে তাদের বাড়িতে এসেছিল। তখন গ্রামের লোকজন মিলে তাদের বাড়িতে পৌঁছে দেয়া হয়েছে।

স্থানীয় ইউপি সদস্য রবিন হাওলাদার জানান, বিষয়টি কলাপাড়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তাকে জানানো হয়েছে। তবে মিঠুন সিমলাই বিষয়টি অন্যায় করেছে বলে তিনি জানিয়েছেন।

চম্পাপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মো.রিন্টু তালুকদার জানান, ওই এলাকার গণ্যমান্য ব্যক্তিদের বিষয়টি সমাধানের দায়িত্ব দেয়া হয়েছে।

কলাপাড়া থানার ওসি মো মোস্তাফিজুর রহমান বলেন, এ বিষয়ে শুনেনি। কোন অভিযোগ পায়নি। অভিযোগ পেলে আইনানুগ ব্যাবস্থা নেয়া হবে।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More News Of This Category
All rights reserved © 2021 Banglarrobi.com
Theme Customization By NewsSun